সোমবার ১৭ জুন, ২০১৯

ধান ও পাটকল ইস্যুতে জেলা বিএনপি’র স্মারকলিপি

মঙ্গলবার, ২১ মে ২০১৯, ১৭:৫০

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: কেন্দ্রীয় ঘোষণা অনুযায়ী ধানের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত এবং পাটকল শ্রমিকদের বকেয়া বেতন পরিশোধের দাবিতে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে স্মারকলিপি দিয়েছে জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) জেলার নেতৃবৃন্দ।

মঙ্গলবার (২১ মে) সকাল সাড়ে ১১টায় জেলা প্রাশাসকের সম্মেলন কক্ষে জেলা প্রশাসকের পক্ষে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মুহাম্মদ মাসুম বিল্লাহর কাছে স্মারকলিপি তুলে দেন জেলা বিএনপির সভাপতি কাজি মনিরুজ্জামান ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়, বোরো ধানের দাম নিয়ে কৃষকদের মধ্যে চরম অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। উৎপাদন খরচের থেকে তিনশত টাকা কমে প্রতি মণ ধান বিক্রি করতে হচ্ছে কৃষকদের। প্রতিবিঘা জমিতে ক্ষতি হচ্ছে ২ হাজার টাকা। ধানের ন্যায্য মূল্য না পাওয়ায় টাঙ্গাইল, জয়পুরহাট ও নেত্রকোণাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে কৃষকরা পাকা ধানখেতে আগুন দিচ্ছে, পাকা ধানে মই দিচ্ছে, সড়কে ধান ছিটিয়ে প্রতিবাদ করছে। সরকার প্রতিমণ ধান কেনার জন্য ১ হাজার ৪০ টাকা প্রদান করলেও কৃষকের হাতে যাচ্ছে ৪শ থেকে ৫শ টাকা। বাকি টাকা যাচ্ছে সরকারের আনুকূল্য মধ্যস্বত্বভোগীদের পকেটে। এই নিয়ে সরকারের কোনো মাথা ব্যথা নেই। ধানের দাম কমার জন্য উদ্ভুত সংকটে সরকার উদাসীন। এ বিষয়ে তাদের কোনো দায় নেই বলে কৃষিমন্ত্রী সাফ জানিয়ে দিয়েছে। সরকারের গণবিরোধী নীতির কারণেই কৃষকরা উৎপাদিত ধানের ন্যায্য মূল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। অথচ কৃষকরাই দেশের আত্মা ও প্রাণ। কৃষকদেরর রক্ষা করতে না পারলে দেশে দুর্যোগ নেমে আসবে। তারা উৎপাদন বন্ধ করে দিলে দেশে দূর্ভিক্ষ নেমে আসেবে। ১৭ কোটি মানুষ না খেয়ে মরবে।

পাশাপাশি জাতীয় মজুরী কমিশন বাস্তায়ণ ও বকেয়া মজুরীসহ ৯ দফা দাবিতে বাংলাদেশ রাষ্ট্রায়াত্ত্ব বিভিন্ন পাটকল শ্রমিকরা আন্দোলন করছে। দেশের ২৬টি পাটকলে একজোগে লাগাতার ধর্মঘট শুরু হলেও সরকার তাদের যৌক্তিক দাবি মেনে নিচ্ছে না। ১০ থেকে ১৫ সপ্তাহ বেতন না পেয়ে শ্রমিকরা অনাহারে মানবেতর জীবনযাপন করছে। ২০১৫ সালের মজুরী কমিশন রোয়েদাত এখনো বাস্তবায়ন করা হয়নি। অথচ রমজান মাস শুরু হয়েছে।

আমরা বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) নারায়ণগঞ্জ জেলা, মধ্যস্থতাকারী সুবিধাভোগীদের কাছ থেকে ধান ক্রয় না করে সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে ধান ক্রয় করে ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করা ও মধ্যস্বত্বভোগী সিন্ডিকেটের দৌরাত্ম বন্ধ করার জন্য এবং পাটকল শ্রমিকদের যৌক্তিক দাবি মেনে নেয়ার জন্য সরকারকে আপনার মাধ্যমে আহ্বান জানাচ্ছি।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, জেলা বিএনপির সহ সভাপতি খন্দকার আবু জাফর, সহ সভাপতি এড. আবুল কালাম আজাদ বিশ্বাস, সহ সভাপতি মনিরুল ইসলাম রবি, সহ সভাপতি নজরুল ইসলাম টিটু, সহ সভাপতি খন্দকার হুমায়ুন কবির, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক এম এ আকবর, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মাহফুজুর রহমান হুমায়ুন, মোশাররফ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম পান্না, সাংগঠনিক সম্পাদক মাশুকুল ইসলাম রাজিব, দপ্তর সম্পাদক নজরুল ইসলাম বাবুল, প্রকাশনা সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম রিয়াজ, যুব বিষয়ক সম্পাদক আশরাফুল হক রিপন, আইন বিষয়ক সম্পাদক খোরশেদ মোল্লা, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক ও জেলা মহিলাদল এর সভানেত্রী নুরুন্নাহার বেগম, ক্রিড়া বিষয়ক সম্পাদক নাদিম হাসান মিঠু, ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক ও জেলা ছাত্রদলের সভাপতি মশিউর রহমান রনি, ক্ষুদ্র ঋন ও সমবায় সম্পাদক মোমেন খান, সাংস্কৃতিক সম্পাদক জাকির হোসেন, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক শরিফ মোল্লা, মৎস্য বিষয়ক সম্পাদক আলী আহম্মদ লালা, সহ দপ্তর সম্পাদক বোরহান ব্যাপারি, সহ আইন বিষয়ক সম্পাদক এড. মাহমুদুল হক আলমগীর, সহ যুব বিষয়ক সম্পাদক একরামুল কবির মামুন, সহ, যুব বিষয়ক সম্পাদক জুয়েল আহমেদ, সহ ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক হাজী আফজাল হোসেন, সহ প্রচার সম্পাদক জাহিদ হোসেন ঈমন, নির্বাহী সদস্য শামছুদ্দিন শেখ, গাজী মনির, অকিল ভুইয়া, রফিক দেওয়ান, মো. আলী আজগর, এড. শিপলু, পারভিন আক্তার প্রমুখসহ বিভিন্ন পর্যায়ের কয়েকশত নেতাকর্মী।

সব খবর
রাজনীতি বিভাগের সর্বশেষ