শুক্রবার ০৫ মার্চ, ২০২১

ধরা পড়ার ভয়ে ট্র্যাংকে লুকিয়ে প্রাণ গেল পরকীয়া প্রেমিকের

শনিবার, ২৬ ডিসেম্বর ২০২০, ১৫:১৮

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: দুসম্পর্কের খালা রুমা বেগমের (৫১) সাথে পরকীয়া সম্পর্ক ছিল নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার লালপুর এলাকার যুবক রফিকুল ইসলাম রনির (৩৮)। রুমার স্বামী থাকতেন ঢাকার বাড্ডায়। প্রায়সময়ই রনি বাড্ডায় গিয়ে রুমার বাসায় থাকতেন। গত ২ নভেম্বর সকালে রুমার বাসায় থাকা অবস্থায় সবজি বিক্রেতা দেখে ফেলবে, এই ভয়ে ট্র্যাংকের ভেতর লুকিয়ে পরে রনি। এক পর্যায়ে ট্র্যাংক লক হয়ে যায়। দুই ঘন্টা পর ট্র্যাংক খুলে রনিকে মৃত পাওয়া যায়। এদিকে গৃহকর্মী আম্বিয়াকে নিয়ে সেই লাশ লুকিয়ে রাখে সেপটিক ট্যাংকে। দেড় মাস পর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

গত ২ নভেম্বর থেকে নিখোঁজ ছিলেন রনি। অনেক খোঁজ করে তাকে না পেয়ে গত ৬ নভেম্বর তার ছোট ভাই মো. আমিনুল ইসলাম ফতুল্লা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। এই ঘটনার দেড় মাস পর গত বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে সদর উপজেলার রামপালের শিকদারবাড়ির একটি সেপটিক ট্যাংক থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। কাজী রফিকুল ইসলাম রনি নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানার লালপুর এলাকার মৃত কাজী জাহের উদ্দিনের ছেলে। এ ঘটনায় রুমা বেগম (৫১) ও গৃহকর্মী আম্বিয়াকে (৩২) গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

এ বিষয়ে মুন্সিগঞ্জ সদর থানার ওসি মো. আবু বকর সিদ্দিক জানান, পরকীয়া প্রেমের সম্পর্কের জেরে রুমার বাড়িতে প্রায় সময়ই থাকতেন রনি। ঘটনার দিন গত ২ নভেম্বর সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এক সবজি বিক্রেতা দেখে ফেলবে এই ভয়ে ঘরের ভেতর একটি কাপড় রাখার ট্র্যাংকের ভেতর লুকায় রনি। এক পর্যায়ে ট্র্যাংকের লক লেগে যায়। দুই ঘণ্টা পর রুমা ট্র্যাংক খুলে দেখেন রনির মারা গেছেন। সারাদিন এবং রাত পেরিয়ে পর দিন ভোরে রনির মরদেহ রুমা এবং আম্বিয়া মিলে সেপটিক ট্যাংকের ভেতরে ফেলে দেয়।

সব খবর
নগরের বাইরে বিভাগের সর্বশেষ