মঙ্গলবার ২২ অক্টোবর, ২০১৯

তিন ভাইয়ের বিরুদ্ধে খাল দখলের অভিযোগ

মঙ্গলবার, ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৮:০৩

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: রূপগঞ্জে তিন ভাইয়ের বিরুদ্ধে পানি উন্নয়ন বোর্ডের খাল দখল করে শিল্পকারখানা নির্মাণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ৩৩ ফুট খালের ৩০ ফুটই দখল অভিযোগ রয়েছে। তাদের খাল দখলের ফলে ৩৩ ফুটের খাল ৩ ফুটে পরিণত হয়েছে। এতে বেড়ি বাঁধের ভেতরের পানি নিষ্কাশনের এই খালটি সংকুচিত হয়ে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হওয়ায় দুর্ভোগে পড়েছে পাঁচশত পরিবার।

রূপগঞ্জ কাঞ্চন পৌরসভার নথপাথর, ডুলুরদিয়া, হাটাব, ত্রিশকাহনীয়া, বাড়ৈপাড়া গ্রামের পানি নিষ্কাশনের জন্য ইরিগেশন প্রজেক্টের আওতায় দুই যুগ আগে খালটি খনন করে পানি উন্নয়ন বোর্ড। শুষ্ক মৌসুমে চাষাবাদের জন্য পানি সরবরাহের পাশাপাশি বর্ষাকালে পানি নিষ্কাশন করে নারায়ণগঞ্জ-নরসিংদী সেচ প্রকল্প (এনএনডি) খালে ফেলা হতো। কিন্তু গত দুই বছর ধরে খালটির সামনের অংশ ভরাট করে তিনটি টেক্সটাইল মিল নির্মাণ করেন স্থানীয় হাজী মুলামদি ভূইয়ার তিন ছেলে কবির হোসেন, মোজাম্মেল হোসেন ও শাজাহান। এ কারণে সেখানে ৩৩ ফিটের খাল রূপ নিয়েছে ৩ ফুটে। ফলে ওই এলাকায় পানি নিষ্কাশন ব্যাহত হয়ে পড়েছে। স্লুইসগেট দিয়ে পানি না টানতে পারায় পানি উন্নয়ন বোর্ডও গত ২ বছর ধরে এ খালের পানি নিষ্কাশন করছেন না। এতে করে নলপাথর গ্রামে সৃষ্টি হয়েছে জলাবদ্ধতা। বছরের অর্ধেক সময় সেখানকার রাস্তাঘাটসহ অনেক ঘরবাড়ি থাকে জলমগ্ন। ফলে এলাকার বাসিন্দারা পানিবাহিত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। অথচ এ ব্যাপারে ভ্রুক্ষেপ নেই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের।

খাল দখলের বিষয়ে অভিযুক্ত কবির হোসেন বলেন, ‘খালটি ৩৩ ফুট প্রশস্ত কথাটি সত্য। কিন্তু আমরা যে বাড়িতে বসবাস করছি তার পাশ দিয়ে খালটি গেছে। খালের পাশের জমি ভেঙে এর প্রশস্ততা কমে যায়। আমরা সেখানে কিছু মাটি ভরাট করে টেক্সাইল মিল করেছি। যদি পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষ খাল খনন করেন তাহলে আমরা জায়গা ছেড়ে দেবো।’

এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ-নরসিংদী সেচ প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল আউয়াল বলেন, ‘ইরিগেশনের খাল দখলের অভিযোগটির ব্যাপারে আমরা অবগত হয়েছি। স্থানীয় বাসিন্দারা ইরিগেশন প্রজেক্ট বন্ধ রাখা ও বাজেটের অভাবে এতদিন খালটি খনন ও দখলদার উচ্ছেদের ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে পারিনি। বর্ষা মৌসুমের পরপরই এ খালটির ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবো।’

এ ব্যাপারে কাঞ্চন পৌরসভার মেয়র রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘তিন ভাইয়ের দখলের ব্যাপারে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে পৌরসভায় নালিশ এসেছে। আমি সংশ্লিষ্ট দফতরে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবো।’

সব খবর
নগরের বাইরে বিভাগের সর্বশেষ