মঙ্গলবার ০২ মার্চ, ২০২১

তারাব পৌর নির্বাচনে গোপন বুথে প্রার্থীর এজেন্ট!

শনিবার, ১৬ জানুয়ারি ২০২১, ২১:০৩

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: ভোটগ্রহণের বুথের ভেতর দেখা গেল একাধিক ব্যক্তি। গণমাধ্যমকর্মীদের উপস্থিতি টের পেয়ে বুথ থেকে বেরিয়ে এলেন দু’জন। বুথের ভেতরে কী করছিলেন জানতে চাইলে বলেন, ‘দেখিয়ে দিচ্ছিলাম, কীভাবে ভোট দিতে হয়?’ শনিবার ১৬ জানুয়ারি দুপুর দেড়টার দিকে তারাব পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের রুপসী কাজীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নারী ভোটকেন্দ্রে দেখা গেছে এমন চিত্র। একই চিত্র ছিল ওই কেন্দ্রের পুরুষ কেন্দ্রটিতেও। ওই কেন্দ্রের বুথেও একাধিক ব্যক্তিকে দেখা গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ওই ভোটকেন্দ্রের বুথের ভেতরে থাকা ব্যক্তিরা ওই ওয়ার্ডের উটপাখি প্রতীকের কাউন্সিলর প্রার্থী মো. হামিদুল্লাহ`র পোলিং এজেন্ট। ভোট দেওয়ার অনুরোধ জানিয়ে ভোটার প্রতি ২০০ টাকা করে বিতরণ করারও অভিযোগ পাওয়া গেছে এই প্রার্থীর বিরুদ্ধে। জনৈক জামানের বাড়ি থেকে ভোটারদের টাকা দেওয়া হয়েছে বলে জানান সাধারণ ভোটাররা।

সকাল ৮টা থেকে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার তারাব পৌর নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু হয়। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী না থাকায় মেয়র ও তিনজন সাধারণ কাউন্সিলর পদে ভোটগ্রহণ হয়নি। তবে কয়েকটি ভোট কেন্দ্রে কারচুপির অভিযোগ পাওয়া যায়। একাধিক ভোটকেন্দ্রে বুথের ভেতর ভোটার ছাড়াও একাধিক ব্যক্তিকে দেখা যায়। দুপুর দেড়টার দিকে রূপসী কাজীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভোট কেন্দ্রের দ্বিতীয় তলায় পুরুষ ভোট কেন্দ্রে দুই বুথে ভোটার ছাড়াও চারজনকে দেখা যায়।

এই কেন্দ্রের ভোটার করিম মিয়া বলেন, কাউন্সিলর প্রার্থী হামিদুল্লাহ’র লোকজন বুথের ভেতরে ঢুকে আঙ্গুল চেপে ভোট দিতে বাধ্য করেছেন। প্রত্যেক ভোটারের সাথেই তারা বুথে প্রবেশ করছেন।

এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে ওই কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার সরোয়ার জাহান বলেন, বিষয়টি তার জানা নেই। এমন কোনো অভিযোগ পাননি। এখানে সব ঠিক আছে। তখন পর্যন্ত এ কেন্দ্রে ৩০ শতাংশ ভোট কাস্ট হয়েছে বলে জানান তিনি।

বরপা হাজী নূরউদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রেও বুথের ভেতর একাধিক ব্যক্তির উপস্থিতি দেখা গেছে। এই কেন্দ্রের ভোটার রুবেল শিকদার বলেন, প্রার্থীর পোলিং এজেন্ট বুথের ভেতরে এসে কোন প্রতীকে ভোট দিচ্ছে তা তদারকি করছিলেন।

এই কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার সাজ্জাদুল করিম বলেন, কোনো প্রকার ঝামেলা ছাড়াই ভোট গ্রহণ চলছে। কোনো প্রার্থীর এজেন্টকে বুথের ভেতরে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি বলে দাবি করেন তিনি।

এদিকে পৌরসভার ৪, ৫ ও ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর প্রার্থী সালমা জাহান ও ৭, ৮ ও ৯ শাহানাজ বেগম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর বিরুদ্ধে কারচুপির অভিযোগ তোলেন। বিষয়টি তারা প্রিজাইডিং অফিসারের কাছেও জানান।

এ বিষয়ে তারাব পৌর নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মতিয়ুর রহমান বলেন, শান্তিপূর্ণভাবে তারাব পৌরসভার নির্বাচনের ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। জেলা প্রশাসকসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ভোটকেন্দ্রগুলো পরিদর্শন করেছে। এমন কোনো ঘটনা বা অভিযোগ পাওয়া যায়নি।

এ পৌরসভায় ছয়টি সাধারণ কাউন্সিলর এবং তিনটি সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে মোট প্রার্থী রয়েছেন ৩৬ জন। তার মধ্যে সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থী ১০ জন, সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থী ২৬ জন। মোট ৮৫ হাজার ২৬৯ জন ভোটারের মধ্যে পুরুষ ভোটার ৪৪ হাজার ১৫১ জন এবং নারী ভোটার রয়েছেন ৪১ হাজার ১১৮ জন।

সব খবর
রাজনীতি বিভাগের সর্বশেষ