শুক্রবার ১৬ নভেম্বর, ২০১৮

তফসিল ঘোষণার পূর্বে সরকারের পদত্যাগ দাবিতে সমাবেশ

শুক্রবার, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২২:৪২

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: তফসিল ঘোষণার পূর্বে সরকারের পদত্যাগ ও সংসদ ভেঙ্গে দেয়ার দাবিতে জনসভা করেছেন বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখা। এ সময় তারা নির্বাচনকালীন তদারকি সরকার গঠন ও নির্বাচন কমিশন সংস্কারের দাবী জানান।

শুক্রবার (১৪ সেপ্টেম্বর) বিকেলে চাষাড়া শহীদ মিনারে জনসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ সময় বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টিও নেতাকর্মীরা পোশাক শ্রমিকদের জন্য সরকার কর্তৃক ঘোষিত আট হাজার টাকা মজুরি প্রত্যাখ্যান করেন।

বাংলাদেশ বিপ্লবী ওয়ার্কাস পার্টির নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি মাহমুদ হোসেনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বহিৃশিখা জামালী।বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ টেক্সটাইল গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি এড. মাহবুবুর রহমান ইসমাইল, জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক আবু হাসান টিপু , সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য শহিদুল আলম নান্নু, রাশিদা বেগম, ফতুল্লা থানা কমিটির সভাপতি আলামিন প্রমুখ।

বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি পলিট ব্যারো সদস্য বহিৃশিখা জামালী বলেন, ‘সরকার বলেন এ সরকার গরিব, মেহনতীদেরও সরকার। ভোটের সময় মেহনতী মানুষ তাদের কাছের মানুষ হয়ে যায়। আর নির্বাচন শেষে সেই সরকার হয়ে যান স্বৈরাচারী সরকার। তাদের বড় বড় দাত বের হয়। বর্তমার অবস্থা খুবই শোচনীয়। শুধু শোষণ আর শোষণ। মানুষ কত সহ্য করতে পারে। জনগণের টাকায় সরকার চলে। এ সরকার নিত্যদিনের সকল পণ্যসহ প্রত্যেকটা জিনিসে টেক্স নেয়। কি অধিকার আছে তার জনগণের টাকা খরচ করবার? জনগণের টাকায় ফুর্তি করবার? আজ ছোট ছোট সোনামণিরা নিরাপদ সড়কের দাবিতে রাস্তায় নামেছিল, প্রতিবাদ করেছিল। ওই ছোট ছোট শিশুদের বিবেক জাগ্রত হতে পারলে কেন আমাদের সর্ব সাধারণের বিবেক জাগে ওঠেনা কেন? কি চমৎকার উন্নয়ণের জোয়ার বয়ে যাচ্ছে। উন্নয়নের ভেজে আমরা অস্থির হয়েগেছি। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারী নির্বাচন ছাড়াই সরকার গঠিত হলো। এখন মন্ত্রিসভা আবার পায়ত্রারা করছে নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা করবে সরকারে থেকে। সংবিধানের নিয়ম ভঙ্গ করে তারা নিজেদের নিয়ম জারি করবে। এমন অবস্থায় সুষ্ঠ পরিবেশে নির্বাচন সম্ভব না। নির্বাচনী তফসিল বাতিল করতে হবে এবং এই সংসদকে পদত্যাগ করতে হবে। সংসদের পদত্যাগ ছাড়া সুষ্ঠ নির্বাচন সম্ভব না।

জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক আবু হাসান টিপু বলেন, ‘দ্রব্যমূল্যের দাম দিনদিন পাগলা ঘোড়ারর মতো বেড়েই চলেছে। কিন্তু শ্রমিকদের বেতন সে অনুযায়ী বৃদ্ধি পাচ্ছে না। সরকার শুধু তাদেরই বেতন বৃদ্ধি করে যাদের বেতন ভাতা বৃদ্ধি করলে সরকার আবার ক্ষমতায় আসতে পারবে। শেখ হাসিনার আমলে বাংলাদেশের জনগণ কোনো নির্বাাচনে সুষ্ঠভাবে ভোট দিতে পারেনি। বাংলাদেশের সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে সেদিকে সরকারের কোনো নজার নেই। বাংলাদেশের মানুষ ১৯৭১, ৯০ এ যেমন সাহসিকতার প্রমাণ দিয়েছে এখন আবার সেই সাহসিকতার প্রমাণ দেয়ার সময় হয়ে গেছে। সারা বাংলাদেশের মানুষকে বলছি যেহেতু সরকার বদলের একমাত্র পথ নির্বাচন। দয়া করে এ পথটি বন্ধ করবেন না।’

সব খবর
রাজনীতি বিভাগের সর্বশেষ