শুক্রবার ১৫ নভেম্বর, ২০১৯

জোড়া খুনের আসামিকে নিয়ে ডিসির সাথে ‘কবিয়াল’এর সাক্ষাৎ

মঙ্গলবার, ৫ নভেম্বর ২০১৯, ২২:১৩

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: ফতুল্লার কাশীপুরে আলোচিত জোড়া খুনের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার এজাহারনামীয় আসামি রাসেলকে সাথে নিয়ে জেলা প্রশাসক মো. জসিম উদ্দিনের সাথে সাক্ষাৎ করেছে ‘কবিয়াল’ নামে একটি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। এ সময় ডিসিকে ওই সংগঠনের পক্ষ থেকে সম্মননা স্মারক ও বই উপহার দেন তারা। পুরো আয়োজনেই উপস্থিত ছিলেন জোড়া খুন মামলার ওই আসামি।

জোড়া খুন মামলার আসামি রাসেল বাবুরাইলের বাসিন্দা বুলবুল আহমেদের ছেলে। সে নাসিকের প্যানেল মেয়র আফসানা আফরোজ বিভার স্বামী বিএনপি নেতা হাসান আহম্মেদের ভাগিনা।

২০১৭ সালের ১২ অক্টোবর রাতে কাশীপুরের হোসাইনী নগর এলাকাতে একটি রিকশার গ্যারেজে কুপিয়ে তুহিন হাওলাদার মিল্টন (৪০) ও পারভেজ আহমেদ (৩৫) নামে দু’জনকে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় নিহতদের পরিবার ভয়ে মামলা করতে রাজি হননি। পরে নিহত পরিবারগুলোর পক্ষে ১৪ অক্টোবর ফতুল্লা মডেল থানার এসআই মোজাহারুল ইসলাম বাদী হয়ে ওই মামলাটি দায়ের করেন। ওই মামলায় এজাহারনামীয় আসামি করা হয় রাসেলকে। এ মামলায় জামিনে রয়েছেন তিনি। আলোচিত মামলাটি জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশে তদন্তনাধীন রয়েছে।

এদিকে জোড়া খুন মামলার আসামিকে সাথে নিয়ে মঙ্গলবার (৫ নভেম্বর) কবিয়াল ফাউন্ডেশনের পক্ষ জেলা প্রশাসক মো. জসিম উদ্দিনের কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে তাকে সম্মাননা স্মারক ও বই উপহার দেয়া নিয়ে চলছে সমালোচনা। জেলার উর্ধ্বতন এই কর্মকর্তাকে সম্মাননা জানাতে কেন জোড়া খুনের আসামিকে সাথে রাখতে হবে- কবিয়াল সংগঠনের প্রতি এমন প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে।

এ বিষয়ে কবিয়াল সংগঠনের সভাপতি বাপ্পী সাহা বলেন, ‘রাসেল কবিয়াল সংগঠনের কার্যকরী কমিটিতে নেই। তবে তাকে উপদেষ্টা পরিষদে সংযুক্ত করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’

হত্যা মামলার আসামির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এ বিষয়ে আমি জানতাম না। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক রানার (বিভা হাসানের পিএস) মাধ্যমেই কবিয়াল সংগঠনের সাথে যুক্ত হয়েছেন রাসেল।’

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক মো. জসিম উদ্দিন বলেন, ‘আসলে এ বিষয়ে আমি জানতাম না। জানার প্রশ্নও ওঠে না। তবে আমি এ বিষয়ে সংগঠনটির সভাপতি বাপ্পী সাহার সাথে কথা বলবো।’

সব খবর
নগর বিভাগের সর্বশেষ