রবিবার ২৯ মার্চ, ২০২০

চেহারা দেখিয়ে মুনাফার আশায় অনেকে রাজনীতি করে: শামীম ওসমান

শনিবার, ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ২০:২৮

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: `অনেকেই এখন রাজনীতি করেন মঞ্চের পাশে এসে চেহারা দেখাবার জন্য। এই চেহারাটাকে পুঁজি করে পরে নিজের আর্থিক মুনাফা লাভ করেন` বলে মন্তব্য করেছেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ শামীম ওসমান। তিনি বলেন, সমাজে দিন দিন ভালো মানুষের সংখ্যা কমে যাচ্ছে। সমাজে ৯৮ ভাগ ভালো মানুষ কিন্তু খারাপ মানুষের ধাক্কায় ভালো মানুষ সামনে আসতে পারছে না। সমাজের যেকোন পেশায় খারাপের প্রভাব অনেক বেশি দেখায় কারণ চাটুকারবৃত্তি ও তৈলমন্থন করে তারা সামনে আসতে চায়। কিন্তু ভালো মানুষেরা তা করতে চায় না।

শনিবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে বন্দরের কবিলের মোড় এলাকায় প্রয়াত জাতীয় শ্রমিক লীগের সাবেক সভাপতি শুক্কুর মাহমুদের স্মরণ সভায় তিনি একথা বলেন।

তিনি বলেন, ৭৫ এর পরে যে মানুষগুলো রাজনীতি করেছেন তার মধ্যে শুক্কুর ভাই অন্যতম। ২১ বছর আমরা ক্ষমতায় ছিলাম না। ২১ বছর আমাদের সংগ্রাম করতে হয়েছে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আনার জন্য। এখন চারিদিকে শুধু দেখি আওয়ামী লীগ আর আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগ ছাড়া আর কোন লীগ দেখি না আমি। কিন্তু সেদিন আওয়ামী লীগের এত মানুষ ছিলো না।

তিনি আরও বলেন, রাজনীতিতে পকেট ভরার জন্যই অনেকে সৃষ্টি হয়। পকেট খোলার জন্য অনেক কম মানুষ থাকে। কিন্তু শ্রমের টাকা হলে সে টাকা খরচে অনেক কষ্ট হয়। লুটের টাকা খরচ করা যায় রাজনীতিতে চমক সৃষ্টি করার জন্য। তবে নিজের পকেট থেকে টাক খরচ করে স্কুল কলেজ তৈরি করে যাচ্ছেন সেলিম ওসমান। আমি প্রধানমন্ত্রীকে বলেছিলাম আপা আপনি তাকে থামান। তিনি বললেন ও সঠিক পথেই আছে।

শামীম ওসমান বলেন, ৩০-৩৫ বছর আগে পৌর পাঠাগারে শ্রমিক লীগের কমিটি হচ্ছিল তখন। আমি দেখলাম সমস্ত মানুষ চান শুক্কুর মাহমুদ জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি হন। কিন্তু কিছু সংখ্যক মানুষ চায় না এপাড়ের লোক ওপাড়ে গিয়ে জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি হন। কিন্তু ঐ মানুষগুলোই এখন আর আওয়ামী লীগে নেই। আওয়ামী লীগের নাম বেচে অনেকেই রাজনীতি করে সেই শক্তিটি সেদিন শুক্কুর মাহমদের উপর হামলার অপপ্রয়াস চালিয়েছিল।

নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক হুমায়ূন কবীর মৃধার সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ সেলিম ওসমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহীদ মো. বাদল, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. খোকন সাহা, জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক আবুল জাহের, বন্দর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান এমএ রশিদ, সাধারণ সম্পাদক কাজিমউদ্দিন প্রধান, মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক শাহ্ নিজাম, সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলাল, শহর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন ভূঁইয়া সাজনু, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুদ্দিন আহমেদ দুলাল প্রধান, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সাফায়েত আলম সানি, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আজিজুর রহমান আজিজ, মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান রিয়াদ, সাধারণ সম্পাদক হাসনাত রহমান বিন্দু, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক আরাফাত কবির ফাহিম প্রমুখ।

সব খবর
রাজনীতি বিভাগের সর্বশেষ