রবিবার ১৮ আগস্ট, ২০১৯

গোলাম হোসেনের বিরুদ্ধে আবারও চাঁদাবাজির মামলা

মঙ্গলবার, ৬ আগস্ট ২০১৯, ১৯:৪১

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: বন্দরের নবীগঞ্জ এলাকায় পরিবহনে চাঁদাবাজির ঘটনায় সিটি কর্পোরেশনের ইজারাদার গোলাম হোসেনের বিরুদ্ধে আরো একটি চাঁদাবাজির মামলা দায়ের করেছে র‌্যাব।

গত সোমবার (৫ আগস্ট) বিকেলে বন্দরের নবীগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অভিযান চালিয়ে গোলাম হোসেনের হয়ে সড়কে চাঁদাবাজি করার সময় মনির হোসেন ও সাব্বির হোসেন নামে দুই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। ওইদিন রাতেই গ্রেফতারকৃত দুইজনসহ ইজারাদার গোলাম হোসেনকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বন্দর থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) আজহারুল ইসলাম। তিনি বলেন, আসামি গোলাম হোসেনকে গ্রেফতারে অভিযান চলছে। অতি দ্রুত তাকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে।

এর আগে গত ১৪ জুলাই নবীগঞ্জ স্ট্যান্ডে অভিযান চালায় র‌্যাব। এ সময় আসিফ ও সাদ্দাম নামে দুই ব্যক্তিকে চাঁদাবাজির সময় হাতে-নাতে গ্রেফতার করে র‌্যাব। তারা ইজারাদার গোলাম হোসেনের হয়ে চাঁদাবাজি করতো বলে জানায় র‌্যাব। এ ঘটনায় দায়েরকৃত চাঁদাবাজির মামলায় গোলাম হোসেনকে আসামি করা হয়। তবে গোলাম হোসেনকে এখন পর্যন্ত গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

এদিকে র‌্যাব জানায়, একটি চাঁদাবাজ চক্র দীর্ঘদিন ধরে নবীগঞ্জ বাস স্ট্যান্ড এলাকায় রাস্তায় চলাচলরত বাস, ট্রাক, সিএনজি, অটোরিক্সা চালকদের কাছ থেকে ভয়ভীতি ও হুমকি প্রদর্শন করে জোরপূর্বক গাড়ি প্রতি ৫০ থেকে ৩০০ টাকা করে চাঁদা আদায় করে আসছিল। কোন বাস, ট্রাক, সিএনজি ও অটোরিক্সা চালক চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে তাদের মারধরসহ জীবন নাশের হুমকি প্রদান করতো।

র‌্যাব আরো জানায়, মো. গোলাম হোসেন নামক স্থানীয় এক ব্যক্তি ২০১৯ সালের মে মাসে সিটি কর্পোরেশন থেকে নবীগঞ্জ বেবী, টেম্পু স্ট্যান্ডের ইজারা নেয়। সিটি কর্পোরেশনের ইজারার তালিকায় নবীগঞ্জ স্ট্যান্ডটি মূলত বেবী, টেম্পু স্ট্যান্ড হিসেবে উল্লেখ আছে। সিটি কর্পোরেশনের উক্ত ইজারায় ১২নং শর্তে স্পষ্ট উল্লেখ রয়েছে বেবী, টেম্পু, টেক্সী পার্কিং ফি দৈনিক ১৫ টাকা। কিন্তু একটি চাঁদাবাজ চক্র এই ইজারাদারের ছত্রছায়ায় রাস্তায় চলাচলরত বাস, মাইক্রো ও কাভার্ড ভ্যান থামিয়ে জোরপূর্বক ভয়ভীতি এমনকি মারধর করে ৫০ টাকা থেকে ৩০০ টাকা পর্যন্ত চাঁদা আদায় করে আসছিল যা স্থানীয় মিডিয়ায় একাধিকবার প্রকাশিত হয়েছে। চাঁদাবাজি সংক্রান্তে অভিযোগের সত্যতা পেয়ে চাঁদাবাজি বন্ধ ও জড়িতদের আইনের আওতায় আনার জন্য অভিযান চালিয়ে এ পর্যন্ত চারজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। যারা গোলাম হোসেনের হয়ে চাঁদা আদায় করতো।

সব খবর
নগরের বাইরে বিভাগের সর্বশেষ