শুক্রবার ২২ নভেম্বর, ২০১৯

কাউন্সিলরের কারসাজিতে ভুগছেন দক্ষিন এনায়েতনগরবাসী, মেয়রের আশ্বাস

রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২১:১০

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: সিদ্ধিরগঞ্জের দক্ষিন এনায়েতনগরের ৮ ফুটের একটি রাস্তা নিয়ে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লার দ্বি-পাক্ষিক আচরণের কারণে দীর্ঘদিন যাবৎ ভুগছেন এলাকাবাসী। এ বিষয়ে ভুক্তভোগী এলাকাবাসী নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী ও জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদের কাছে লিখিত অভিযোগ প্রদান করেছেন।

রোববার (২২ সেপ্টেম্বর) বিকেলে নগরভবনে সিটি মেয়রের সাথে দেখা করেন এলাকাবাসী। পরে তাকে বিষয়টি জানানো হয়। এ সময় মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লার সাথে আলোচনা সাপেক্ষে এ সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দেন। এ সময় দক্ষিন এনায়েতনগর এলাকাবাসীর সাথে উপস্থিত ছিলেন জেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক হিমাংশু সাহা। এর আগে জেলা পুলিশ সুপারকে বিষয়টি সম্পর্কে অবহিত করেন এলাকাবাসী।

ভুক্তভোগী এলাকাবাসী জানান, প্রায় ২০ বছর পূর্বে মৃত মীর মোশারফ হোসেন ও মৃত সাহাবুদ্দিন চৌধুরীর সাথে দ্বি-পাক্ষিক আলোচনাসাপেক্ষে ২ পাশে ৪ ফুট বাই ৪ ফুটের একটি রাস্তা নির্মাণের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। পরবর্তীতে সাহাবুদ্দিনের ছেলে মোসলে উদ্দিন চৌধুরীর সাথে কাউন্সিলর রুহুল আমিন ও অন্যান্য গণ্যমান্য ব্যক্তির উপস্থিতিতে ৮ ফুটের রাস্তা নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। উক্ত বৈঠকে সমঝোতা সাপেক্ষে কিছু বাড়ির মালিকদের জমি বাবদ মূল্য নির্ধারণ করে দেন কাউন্সিলর এবং উক্ত টাকা পরিশোধ করার পরও রাস্তা পুনঃনির্মাণ করা হয়নি। এদিকে গত ১৭ সেপ্টেম্বর জুলফিকার রি-রোলিং মেইলের মালিক জুয়েল ও মৃত মীর মোশারফের ছেলে মীর আবির হোসেনের যোগসাজসে পূর্বদিকের ৪ ফুট রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে শক্ত বেড়া দিয়ে দেয়। এর ফলে সাধারণ জনগণের চলাচল বাধাগ্রস্থ হয়।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, এলাকাবাসী বেড়া ভেঙ্গে দিলে ওই এলাকার বাসিন্দা শিক্ষক শাহ্জাহান, শ্রমিক নেতা এইচ রবিউল চৌধুরী, মিন্টু মিয়া ও মিজানুর রহমানকে আসামি করে একটি থানায় একটি ভুয়া অভিযোগ দায়ের করেন মিল কর্তৃপক্ষ। কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লার উদাসীন ও দ্বি-পাক্ষিক মনোভাবের কারণেই এই কাজটি করেছে তারা। এ বিষয়ে মেয়রের হস্তক্ষেপ কামনা করেন এলাকাবাসী।

এদিকে বিষয়টি সিটি মেয়রকে জানালে মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেন, ‘আমি এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেবো। আপনাদের চিন্তা করার দরকার নেই। আগামীকাল সিটি কর্পোরেশনের মিটিং রয়েছে, সেখানে কাউন্সিলরাও থাকবেন। ওই মিটিংয়ে কাউন্সিলর রুহুল আমিনের সাথে আলাপ করে বিষয়টির সমাধান করা হবে। আর মামলা নিয়ে চিন্তা করবেন না। কাউন্সিলরের সাথে আলোচনা করে মামলা তুলে নেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে।’

সব খবর
নগর বিভাগের সর্বশেষ