শুক্রবার ১৪ আগস্ট, ২০২০

করোনা পরিস্থিতিতেও ক্রোনী গার্মেন্টসে ৩০ শ্রমিক ছাঁটাই

বুধবার, ২৫ মার্চ ২০২০, ২০:২৫

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জে ক্রোনী গার্মেন্টসের অন্তত ৩০ জন শ্রমিককে ছাঁটাই করে দেওয়া হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। অনিয়মিত থাকার অভিযোগে শ্রমিকদের ছাটাই করা হয়েছে। আরও ছাটাইয়ের আশঙ্কা করছেন কর্মরত শ্রমিকরা। করোনা ভাইরাসের কারণে দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতেও এই শ্রমিক ছাঁটাইয়ের বিষয়টি নিয়ে শঙ্কিত ও ক্ষুব্দ শ্রমিকরা। শ্রমিক নেতারা বলছেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে মালিক সংগঠন বিকেএমইএ এর সভাপতি সাংসদ সেলিম ওসমান যেখানে শ্রমিক ছাঁটাইয়ের বিরুদ্ধে কথা বলছেন সেখানে ক্রোনী গ্রার্মেন্টস মালিকের এমন কাজ ন্যাক্কারজনক।

ক্রোনী গার্মেন্টসের একাধিক শ্রমিক জানান, গত মঙ্গলবার প্রতি ফ্লোর থেকে প্রায় ৬-৭ জন করে শ্রমিক ছাঁটাই করে দেওয়া হয়েছে। সব মিলিয়ে ৩০ জন শ্রমিককে ছাঁটাই করা হয়েছে। ছাটাই করা শ্রমিকদের মধ্যে কয়েকজন ওই গার্মেন্টসে ছয় মাসেরও অধিক সময় ধরে কর্মরত ছিলেন। অনিয়মিতের অভিযোগে তাদের ছাটাই করা হয়েছে। ছাঁটাই করা শ্রমিকদের আইডি কার্ড রেখে দেওয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে আরও শ্রমিক ছাটাইয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছে মালিকপক্ষ। তবে কর্মকর্তা পর্যায়ের কারও ছাটাইয়ের খবর পাওয়া যায়নি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক নারী শ্রমিক বলেন, মঙ্গলবার ফ্লোর ইনচার্জ এসে কয়েকজন শ্রমিককে ডেকে তাদের ছাটাই করার বিষয়টি জানান। তিনি যে ফ্লোরে কাজ করেন ওই ফ্লোরের দশজনকে ছাটাই করা হয়েছে। তাদের কার্ডও রেখে দেওয়া হয়েছে। অন্যান্য ফ্লোরেও শ্রমিক ছাটাই করা হয়েছে বলেও জানান ওই নারী শ্রমিক।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে আরও এক শ্রমিক জানান, তিনি ইটিপি সেকশনে কাজ করেন। সেখানে শ্রমিক ছাটাই করা হয়নি। তবে শুনেছেন, ডায়িং সেকশনের পাঁচ-ছয়জন শ্রমিককে ছাঁটাই করা হয়েছে।

শ্রম আইন মেনে ছাঁটাই করা হয়েছে কিনা জানতে চাইলে ওই শ্রমিক বলেন, নিয়ম তো মানার কথা। কিন্তু মালিকরা কি ওইসব মানে? এই সময়ে শ্রমিক ছাটাই করার ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন ওই শ্রমিক।

করোনা পরিস্থিতির মতো এই সংকটকালীন সময়ে শ্রমিক ছাটাইয়ের ঘটনার নিন্দা জানিয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি ও শ্রমিক কর্মচারী সংগ্রাম পরিষদের সমন্বয়ক হাফিজুল ইসলাম, ‘ছাঁটাই হওয়া একাধিক শ্রমিকের সাথে আমরাও কথা বলেছি। এই সংকটের সময়ে বিকেএমইএ এবং বিজেএমইএ শ্রমিক ছাটাইয়ের বিরুদ্ধে কথা বলছেন। বিকেএমইএ এর সভাপতি এমপি সেলিম ওসমান একটি জাতীয় নিউজে হলফ করে বলেছেন, একজন শ্রমিককেও ছাটাই করা হবে না। একজনের বেতনও বাদ দেওয়া হবে না। কিন্তু ক্রোনী গার্মেন্টসের মালিক আসলাম সানি সাহেব শ্রমিক ছাটাইয়ের মতো এই ন্যাক্কারজনক কাজটি করেছেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা এ ঘটনা জানার পর থেকেই শ্রমিকদের নিয়ে আন্দোলনে যেতে চেয়েছি। কিন্তু বর্তমান করোনা পরিস্থিতির কারণে যেতে পারিনি। ক্রোনী গার্মেন্টসে দীর্ঘদিন যাবৎ শ্রমিক নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। এই কঠিন সময়েও মালিকপক্ষ এই কাজটি করেছেন। এই কাজটি ন্যাক্কারজনক। আমরা জেলা প্রশাসকের সাথে এ বিষয়ে কথা বলবো। ছাটাই তো প্রত্যাহার করবেনই এবং মালিক আসলাম সানির বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি আমরা জানাবো।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মুঠোফোনে ক্রোনী গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আসলাম সানি বলেন, ‘কোনো শ্রমিক ছাটাই করা হয়নি। স্কিল টেস্টের জন্য তিন মাসের জন্য অনেককে রাখা হয়। তাদের মধ্যে যারা টিকে যান তারা স্থায়ী শ্রমিক হন। এদের মধ্য থেকেই ২০-২৫ জন বাদ পড়েন। এটা শ্রম আইনের নিয়ম অনুযায়ী করা হয়। এটা রেগুলার প্র্যাকটিস, এটা নিয়ম। এটাকে ছাটাই বলে না।’

তবে ছয় মাসেরও বেশি সময় ধরে কর্মরত শ্রমিককেও ছাটাই করা হয়েছে। এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি কিছু বলতে রাজি হননি তিনি।

সব খবর
নগর বিভাগের সর্বশেষ