বৃহস্পতিবার ২৮ মে, ২০২০

করোনায় স্নানোৎসব বাতিল, জনসমাগম ঠেকাতে লাঙ্গলবন্দে পুলিশ

মঙ্গলবার, ৩১ মার্চ ২০২০, ২০:৫৪

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: করোনা ভাইরাসের কারণে জনসমাগম রোধে মহাতীর্থ লাঙ্গলবন্দ স্নান উৎসব বাতিলের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে আগেই। তারপরও পুণ্যার্থীদের স্নান ঘাটে আসার ব্যাপারে নিরুৎসাহিত করতে লাঙ্গলবন্দে অবস্থান নিয়েছে পুলিশ। স্নানকে কেন্দ্র করে জনসমাগম ঠেকাতেই তাদের অবস্থান বলে জানিয়েছেন বন্দর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম।

হিন্দু পুরাণ অনুযায়ী দেবতা পরশুরাম হিমালয়ের মানস সরোবরে গোসল করে মাতৃ হত্যার পাপমুক্ত হন। এরপর তিনি এ পবিত্র পানি লাঙ্গল দিয়ে চষে হিমালয় থেকে সমভূমিতে নামিয়ে আনেন। টানা লাঙ্গল চষে যেখানে এসে তিনি লাঙ্গল থামান বা বন্দ করেন সে স্থানটির নাম ‘লাঙ্গলবন্দ’। এটি নারায়ণগঞ্জ জেলার বন্দর উপজেলায় পড়েছে। প্রতিবছর চৈত্র মাসের অষ্টমী তিথিতে লাখ লাখ ভক্ত পাপমোচনের আশায় এখানে এসে পুরনো ব্রহ্মপুত্র নদে অষ্টমী স্নান করেন। এ উপলক্ষে এখানে বসে সাতদিনের অষ্টমী মেলা।

তিথী অনুযায়ী এবার মঙ্গলবার (৩১ মার্চ) বিকাল ৫টা থেকে অষ্টমী স্নান শুরু হয়ে পরদিন বুধবার রাত ১০টা পর্যন্ত স্নানোৎসব হওয়ার কথা ছিল। তবে সারাবিশ্বের মতো বাংলাদেশেও করোনা সংক্রমন রোধে জনসমাগম না করার লক্ষে স্নানোৎসব বন্ধ ঘোষণা করা হয়। তারপরও পুণ্যার্থীদের আগমন ঠেকাতে অবস্থান নিয়েছে পুলিশ। জনসমাগম এড়াতে সতর্ক অবস্থানে রয়েছে পুলিশ। জেলা পুলিশের একাধিক টিম স্নানোৎসব তিন কিলোমিটার এলাকায় বিভিন্ন পয়েন্টে অবস্থান নিয়েছে।

নারায়ণগঞ্জ পূজা উদযাপন কমিটির সহসাংগঠনিক সম্পাদক বাদল চন্দ্র জানান, তীর্থস্থান লাঙ্গলবন্দে দুই দিনব্যাপী স্নানোৎসবে প্রতি বছরের ন্যায় এ বছরেও বাংলাদেশ ছাড়া পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত, শ্রীলঙ্কা, নেপাল থেকে প্রায় ১০ লাখ দর্শনার্থী অংশ নেওয়ার প্রস্তুতি ছিল। করোনা ভাইরাসে সংক্রমন ঠেকাতে জনসমাগম ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে স্নানোৎসব বন্ধ করা হয় । এই দুইদিন লাঙ্গলবন্দে না গিয়ে গৃহে অবস্থান করে প্রার্থনা করার অনুরোধ জানান তিনি।

বন্দর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শুক্লা সরকার জানান, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশনায় সভা, সমাবেশ, ওয়াজ মাহফিল, তীর্থ যাত্রাসহ সবরকম জনসমাগমে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। এ কারণে লাঙ্গলবন্দ স্নানোৎসব বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

বন্দর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম বলেন, আমি এখনও লাঙ্গলবন্দ আছি। পূর্ব ঘোষণায় স্নান বাতিল ঘোষণা করায় পুণ্যার্থীদের উপস্থিতি নেই। দোকানপাটও সব বন্ধ রয়েছে। করোনা পরিস্থিতিতে কারণে সবাইকেই সচেতন করা হয়েছে। জনসমাগম এড়াতে সতর্ক অবস্থানে রয়েছে পুলিশ।

সব খবর
নগরের বাইরে বিভাগের সর্বশেষ