বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০

করোনায় সেলিম ওসমানের ২ কোটি ২৮ লাখ টাকা অনুদান ঘোষণা

মঙ্গলবার, ২১ এপ্রিল ২০২০, ১৫:২৪

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: করোনা মোকাবেলায় ২ কোটি ২৮ লক্ষ টাকার ফান্ড ঘোষণা করেছেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ সেলিম ওসমান। তিনি বলেন, আমি সম্পূর্ণ আমার ব্যক্তিগতভাবে ২ কোটি ২৮ লক্ষ টাকার একটি ফান্ড সংগ্রহ করেছি। সেখান থেকে নাারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ২২ টি ওয়ার্ডে একটি অংশ যাবে। এ বিষয়ে আমার সাথে মেয়র আইভীর সাথে আমার দীর্ঘসময় আলোচনা হয়েছে। আলোচনার মাধ্যমে আমি আর উনি সিদ্ধান্তটি নিয়েছি।

মঙ্গলবার (২১ এপ্রিল) উইজডম অ্যাটায়ার্সে কাউন্সিলর ও সাংবাদিকদের সাথে এক মতবিনিময় সভায় তিনি একথা বলেন।

কাউন্সিলরদের উদ্দেশ্য করে সেলিম ওসমান বলেন, আমার অঞ্চলের কর্মহীন, হতদরিদ্র ২০ হাজার মানুষের প্রত্যেকের জন্য ২০ কেজি চাল বরাদ্দ যার মুল্য আমরা ধরেছি ৯০০ টাকা। যদি আপনাদের সহযোগিতা পাই তবে রোজার মাসে আমরা ২০ হাজার পরিবারকে ইফতারি করাতে পারবো। প্রতি কমিশনার ৫০০ জন মানুষকে সহায়তা করবেন। আপনি এমন মানুষকে খুজে দিবেন যারা কষ্ট করবেন তবু হাত পাতবেন না। এই ৫০০ জনকে আমরা ৯০০ করে টাকা দিবো। কিন্তু তাদের বিকাশ একাউন্ট খুলে সেটা আমাদের দিতে হবে। প্রতি ওয়ার্ডে ২০ জনের একটি ভলান্টিয়ার টিম থাকবে যাতে করে গুজব দূর করা যায়, সচেতনতামূলক প্রচারণা করা যায়। রোজার মাসে এই টিমের প্রত্যেকের মাসিক সম্মানী ভাতা হবে সাড়ে ৪ হাজার টাকা।

ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আমার এখানে ৭টি ইউনিয়ন পরিষদে ৭জন চেয়ারম্যান। ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যনরা সর্বমোট ১০০০ মানুষের বিকাশ নাম্বারের তালিকা দিবেন। ১২ জন মেম্বার ৬০ জন করে ৭২০ জনের তালিকা। বাকি ২৮০ জনের টা দিকেন চেয়ারম্যানরা। এর পরেও যদি প্রয়োজন পরে তাহলে আমি নিজে এলাকায় এলাকায় যাবো।

তিনি আরও বলেন, টিভি খুললেই দেখা যায় নারায়ণগঞ্জ থেকে রোগ সংক্রমিত হয়েছে। উনারা নারায়ণগঞ্জের লোক না। যে এলাকায় তারা গেছেন তারা ঐ এলাকার লোক। উনাদের জীবন-যাপন, উপার্জন শুধু নারায়ণগঞ্জে। বলা হয় রোগটা উনারা নারায়ণগঞ্জ থেকে নিয়ে গেছেন। রোগাট নারায়ণগঞ্জ থেকে তারা নেন নাই রোগটা যাওয়ার পথেই তিনি নিয়ে গেছেন। পরে দোষ পরে নারায়ণগঞ্জের। আমার মনে হয়, আমাদের নারায়ণগঞ্জটা অনেক অবহেলিত।

সভায় উপস্থিত ছিলেন বন্দর উপজেলার চেয়ারম্যান এম এ রশিদ, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর জমশেদ আলী ঝন্টু, শওকত হাসেম শকু, শফিউদ্দিন প্রধান, নাজমুল আলম সজল, ফয়সাল আহম্মেদ সাগর, গোলাম নবী মুরাদ, হান্নান সরকার, সুলতান আহম্মেদ, সাইফুদ্দিন আহম্মেদ দুলাল প্রধান, আফজাল হোসেন, এনায়েত হোসেন, শামসুজ্জোহা, বাবুল আহম্মেদ, নারী কাউন্সিলর শারমিন হাবিব বিন্নী, মিনুয়ারা বেগম, শিউলি নওশেদ, হোসনে আরা বেগম।

এছাড়াও ছিলেন আলীরটেক ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মতিউর রহমান মতি, গোগনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নওশেদ আলী, কলাগাছিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন প্রধান, বন্দর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এহসান উদ্দিন, মুছাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাকসুদ হোসেন, ধামগড় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাসুম আহম্মেদ, মদনপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এম এ সালাম।

সব খবর
রাজনীতি বিভাগের সর্বশেষ