সোমবার ১৪ অক্টোবর, ২০১৯

এবারও সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবো: দিপু

শনিবার, ২০ জানুয়ারি ২০১৮, ১৭:৫৭

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়নগঞ্জ ডটকম: আসন্ন জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচন নিয়ে সরগরম আদালতপাড়া। আওয়ামীলীগ ও বিএনপি সমর্থিত দুটি প্যানেলে নির্বাচন হচ্ছে। আওয়ামীলীগ সমর্থিত সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের প্যানেলের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিবের দায়িত্ব পালন করছেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের জাতীয় পরিষদের সদস্য আনিসুর রহমান দিপু। একজন পরিছন্ন রাজনৈতিক নেতা হিসেবে আওয়ামী শিবিরে তার একটা পরিচিতি রয়েছে। দীর্ঘদিন একাধিকবার জেলা আইনজীবী সিমিতির নেতৃত্বে ছিলেন। বতর্মানে আইনজীবী সমিতির সভাপতি। আসন্ন নির্বাচন নিয়ে তার সঙ্গে কথা বলেছেন প্রেস নারায়ণগঞ্জ। খোলামেলায় কথায় উঠে এসেছে নির্বাচনের নানা বিষয়।

আনিসুর রহমানের কাছে প্রথম প্রশ্ন ছিল কেমন আছেন?
আনিসুর রহমান দিপু: শীতে তো ভাল নাই। সারা দেশের মানুষ শীতে কষ্ট করছে।

প্রশ্ন: আপনি একাধিকবার আইনজীবী সমিতির নেতৃত্ব দিয়েছেন। পরিচ্ছন্ন একজন রাজনৈতিক হিসেবেও আপনার পরিচিতি আছে। বতর্মানে আপনি আইনজীবী সমিতির সভাপতি। আসন্ন নির্বাচনটাকে কিভাবে দেখছেন?
আনিসুর রহমান দিপু: আইনজীবী সমিতির নির্বাচনটা গতানুগতিক নির্বাচনের বাহিরে। আমরা আইনজীবীরা প্রতিদিন একজন আরেক জনের সাথে দেখা করি, কথা বলি, একসাথে আমরা কাজ করি। গতানুগতিক যে নির্বাচন সেটার তুলনায় এ নির্বাচন আলাদা। সত্যিকার অর্থে এ নির্বাচনটা খেলোয়ার স্বরুপ মনোভাব নিয়ে করি। এখানে যে জিতে সেও কারো প্রতি অভিযোগ করে না, যে হারে সেও কারো প্রতি অভিযোগ করে না। আর এটা গতানুগতিক কোন নির্বাচন না। এটা ডাবল গ্র্যাজুয়েটদের নির্বাচন। সবাই সবার প্রতি সহমর্মিতা রেখে কথা বলে। এখানে বিভিন্ন মতের লোক নির্বাচন করেন। কেউ কারো প্রতি অশালীন আচরন করে না। এক কথায় এটি একটি অহিংস নির্বাচন। বিভিন্ন গতানুগতিক নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীদের বক্তব্যের মাধ্যমে বিভিন্ন কথাবার্তায় আক্রমন করে। এই নির্বাচনেও আক্রমন করা হয় কিন্তু সেটা খুব শালীনতার সহিত। আর এখানে বিষয় হচ্ছে যে, আমি যার বিরুদ্ধে নির্বাচনটা করতেছি, আজকে আমি হেরে গেলাম। কালকেই দেখা গেল ওই বন্ধুটার সাথে আমি একটা মামলায় এ্যাঙ্গেজ হলাম। ওই বন্ধুটার চেয়ারে বসেই আমরা ফাইল পত্র দেখি, মামলা নিয়ে আলাপ করি। সার্বিক কারণে নির্বাচনের ফলে আমাদের সম্পর্কের কোন অবনতি ঘটে না। কোন রকম হিংসা ক্ষোভ আমাদের মধ্যে থাকে না। নির্বাচন পরবর্তীতে সবাই এক হয়ে যায়।

প্রশ্ন: নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্যানেলকে কিভাবে দেখছেন?
আনিসুর রহমান দিপু: সব প্যানেলই ভাল। আমরা কোন প্যানেলকেই দুর্বল ভাবে দেখি না। দেখতে চাইও না।

প্রশ্ন: প্যানেলের প্রচরন কিভাবে চলছে?
আনিসুর রহমান দপিু: আমাদের প্রার্থীদের ব্যালট নাম্বার হাতে পাওয়ার আনুষ্ঠানিতভাবে প্রচরানায় নেমেছি। প্রতিদিনই প্রচারনা চলছে।

প্রশ্ন: ভোটারদের কাছ থেকে আপনাদের প্যানেল কেমন সাড়া পাচ্ছে?
আনিসুর রহমান দিপু: বরাবরই আমরা ভোটারদের কাছ থেকে ভাল সাড়া পাই। এবারো পাচ্ছি। বিগত বছরে প্যানেল আমাকে সভাপতি হিসেবে দাড় করিয়েছে, আমি দাড়িয়েছি। প্যানেল যাকে দাড় করাবে তার পক্ষেই আমরা কাজ করি। গত দুইটার্ম তো আমরাই সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করেছি। গত দুই বছর সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছি, আশা করি এবারো পাবো।

প্রশ্ন: নির্বাচন পরিচালনা কোন কমিটি হয়েছে কিনা। হলে প্রধান সমন্বয়কারী কে?
আনিসুর রহমান দিপু: হ্যা কমিটি তো অবশ্যই হয়েছে। প্রধান সমন্বইয়কারী আসলে বিষয়টা এমন না। একজন আহ্বায়ক, একজন সদস্য সচিব আর একজন যুগ্ন সদস্য সচিব। আহ্বায়ক হলো সাবেক প্রেসিডেন্ট এড. আব্দুল হোসেন ভূইয়া, সদস্য সচিব আমি আর যুগ্ন সদস্য সচিব পি.পি ওয়াজেদ আলী খোকন।

প্রশ্ন: জয়ের ব্যাপারে কতটা আশাবাদী?
আনিসুর রহমান দিপু: শতভাগ আশাবাদী, ইনশাআল্লাহ।

প্রশ্ন: আচ্ছা শেষ একটা প্রশ্ন? আপনাদের আওয়ামীলীগ সমর্থিত সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ ব্যানারে ১৭ জনের একটি প্যানেল নির্বাচন করছে। এই প্যানেল কি আপনাদের সর্বসম্মত্তিক্রমে নির্বাচিত প্যানেল, নাকি কোন ব্যক্তি বিশেষের পছন্দের?
আসিনুর রহমান দিপু: সর্বসম্মতিতে কখনো হয় না। এখানে বিভিন্ন রকমের পছন্দ থাকে। তবে এটা শুধু আওয়ামী সমর্থিত বললে চলবে না, এটা হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের প্যানেল। যে দলগুলো এখানে কাজ করে ‘সমন্বয় পরিষদ’ যেটাকে বলি আর কি, সেখান থেকে বিভিন্ন প্রস্তাব, প্রস্তাবনা আসে। আমাদের প্যানেলে এবার চারজন সভাপতি, সেক্রেটারির প্রস্তাব এসেছে। ব্যক্তি বিশেষের পছন্দ থাকতে পারে কিন্তু ‘সমন্বয় পরিষদ’ সিদ্ধান্ত ও পছন্দের মাধ্যমেই প্যানেল হয়েছে।

প্রশ্ন: আপনাদের সমন্বয় পরিষদ কোন কোন দল নিয়ে গঠিত?
আনিসুর রহমান দিপু: বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ, গনতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতি, জাতীয় আইনজীবী সমিতি।

সময় দেয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

সব খবর
সাক্ষাৎকার বিভাগের সর্বশেষ