সোমবার ১৭ জুন, ২০১৯

ঈদের জামাতকে ঘিরে থাকবে চার স্তরের নিরাপত্তা: এসপি

সোমবার, ৩ জুন ২০১৯, ১৮:২৯

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: ঈদ জামাতকে কেন্দ্র করে নারায়ণগঞ্জে চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে বলে জানিয়েছেন জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ। সোমবার (৩ জুন) দুপুরে ঈদ পূর্ববর্তী পরিস্থিতি জানিয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি একথা জানান।

প্রেস ব্রিফিংয়ে পুলিশ সুপার বলেন, ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে যে ঈদ জামাতগুলি হবে সেগুলোর দিকে আমাদের তীক্ষè নজারদারী রয়েছে। এখন আমাদের মূল লক্ষ্য ঈদের বড় জামাত যা চাষাড়ার কাছে নারায়ণগঞ্জ কেন্দ্রীয় ঈদগাগহ্ মাঠ ও স্টেডিয়াম মাঠে অনুষ্ঠিত হবে সেখানে আমরা বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা রেখেছি। বিশেষ করে মন্ত্রী মহোদয় রুপগঞ্জের মোড়াপাড়া মাঠে এবং নারায়ণগঞ্জের অন্যান্য এমপিগণ যে সকল ঈদ জামাতে নামাজ পরবেন সে সকল জামাতগুলিতেও সার্বিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

নিরাপত্তা ব্যবস্থার বিষয়ে তিনি বলেন, ঈদ জামাতের প্রবেশ পথে আর্চওয়ে গেট স্থাপন করা হয়েছে। মেটাল ডিটেক্টর দিয়ে তল্লাশী করা হবে। এছাড়াও সাদা পোশাকে পুলিশ পাঞ্জাবি, পায়জামা পড়ে ঈদ জামাতে অবস্থান নিবে। জেলা গোয়েন্দা শাখার পুলিশও অবস্থান নিবে। আশপাশের বড় বড় বিল্ডিং এর ছাদেও পুলিশ অবস্থান নিবে। আশেপাশের প্রত্যেক বাড়িতে বাড়িতে পুলিশের অভিযান চলবে। এছাড়াও ঈদ জামাতের পাশে আমাদের পুলিশ কন্টোল রুম থাকবে এবং বিভিন্ন রাস্তার মোড়ে মোড়ে পুলিশের তল্লাশী চৌকি থাকবে।

নারায়ণগঞ্জবাসীকে ঈদের জামাতে জায়নামাজ ছাড়া অন্য কোন কিছু না নিয়ে আসার জন্য অনুরোধ করেন পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ। তিনি বলেন, ‘নিরাপত্তার স্বার্থে আমাদেরকে সহায়তা করার জন্য অনুরোধ করবো সবাইকে। নারায়ণগঞ্জ জেলার সকল ঈদ জামাতের নিরাপত্তার জন্য ৩০০ পুলিশ নিয়োজিত থাকবে।’

এর অগে আসন্ন ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা ও ঈদ জামাতের নিরাপত্তা সংক্রান্তে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে একটি মিটিং করেন। উক্ত মিটিংয়ে জেলা পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ সকল থানার অফিসার ইনচার্জ, পুলিশ পরিদর্শক তদন্তসহ জেলা বিশেষ শাখা এবং জেলা গোয়েন্দা শাখার অফিসারবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। পরে জেলার ফতুল্লা, সদর, সিদ্দিরগঞ্জ, রুপগঞ্জ, সোনারগাঁ, আড়াইহাজার ও বন্দর থানাধীন এলাকায় আসন্ন ঈদ-উল-ফিতরের যে সকল বড় জামাত অনুষ্ঠিত হবে সেগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য কয়েকটি পরিদর্শন করেন এসপি।

ঈদের অগ্রীম শুভেচ্ছা জানিয়ে পুলিশ সুপার বলেন, ‘ঈদের দিনও সাধারণ মানুষের সেবা দিতে নিয়োজিত থাকবে পুলিশ। আগে সকলের নিরাপত্তা তারপর পুলিশের ঈদ উদযাপন।’

প্রেস ব্রিফিংয়ে আরো উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) আব্দুল্লাহ আল মামুন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মোহাম্মদ নূরে আলম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিবি) সুবাস চন্দ্র সাহা, সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ইসলাম, ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসলাম হোসেন, সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর শাহীন শাহ্ পারভেজ, সদর মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মিজানুর রহমান, জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার কর্মকর্তা (ডিআইও-২) মো. সাজ্জাদ রোমন প্রমুখ।

সব খবর
নগর বিভাগের সর্বশেষ