বুধবার ২০ নভেম্বর, ২০১৯

‘আমাদের বাঁচান প্রধানমন্ত্রী’ থান কাপড় ব্যবসায়ীদের আকুতি

বুধবার, ৬ নভেম্বর ২০১৯, ১৯:১৩

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: অপ্রয়োজনীয় উচ্ছেদ বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন করেছেন শহরের দুই নম্বর রেলগেইট এলাকার রেলওয়ে মার্কেটের থান কাপড় ব্যবসায়ীরা। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তারা।

বুধবার (৬ নভেম্বর) সকাল ১১টায় নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সামনে রেলওয়ে সুপার মার্কেটের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের উদ্যোগে এই মানবন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন, রেলওয়ে সুপার মার্কেট ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী মালিক সমিতির সভাপতি বদিউজ্জামান বদু, দোকান মালিক সমিতির সভাপতি দুলাল মিয়া, সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেন, ব্যবসায়ী অঞ্জন দাস প্রমুখ।

মানবন্ধনে ব্যবসায়ীরা বলেন, গত ২৪শে অক্টোবর রেলমন্ত্রী নারায়ণগঞ্জ সফরকালীন বলেছিলেন কতটুকু প্রয়োজন তার অতিরিক্ত কোন স্থাপনা উচ্ছেদ করা হবে না। কিন্তু গত ৩১ অক্টোবর পূর্বের মাপের অতিরিক্ত আরও বিশাল এলাকা রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ উচ্ছেদ করেছে। শোনা যাচ্ছে আগামীতে পুরাে এলাকাটিই উচ্ছেদ করা হবে। ইতিমধ্যে উচ্ছেদ অভিযানের কারনে এখানে সমস্ত ব্যবসা বানিজ্য বন্ধ হয়ে গেছে। এখানকার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ও শ্রমজীবীরা পরিবার পরিজনসহ লক্ষাধিক মানুষ তাদের উপার্জন হারিয়ে অসহায় ও অমানবিক অবস্থায় পরেছে। ব্যবসায়ীরা কোটি কোটি টাকা সিসি ও এসএমই লোন ব্যাংক থেকে নিয়ে দায়গ্রস্থ রয়েছে। দরিদ্র শ্রমজীবীরা কাজ হারিয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছে।

তারা আরও বলেন, আমরা প্রধানমন্ত্রীকে জানাতে চাই দুই নম্বর রেল গেইট এ অবস্থিত রেলওয়ে সুপার মার্কেট এলাকায় যেন উচ্ছেদ কার্যক্রম বন্ধ করা হয়। লাইনের ৪৫ ফুটের বাইরে ৩১ অক্টোবর মার্কেটের যে অংশে ভাঙ্গা হয়েছে সেখানে যেন ব্যবসায়ীদের দোকান নির্মাণ করে পুনরায় ব্যবসা চালানোর সুযোগ দেওয়া হয়।

মানবন্ধনে সভাপতির বক্তব্যে জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ১৭ অক্টোবর নজরুল সাহেব আমাদের বলেছিলেন ডাবল রেললাইনের জন্য ৪৫ ফুট জায়গা হলেই চলবে। এমনকি তিনিসহ আমরা নিজ হাতে ফিতা দিয়ে ঐ পরিমাণ জায়গা মেপে দিয়েছিলাম। ঐ দিন সেই পরিমাণ জায়গা তারা ভেঙ্গেছিলেন। কিন্তু ৩১ শে অক্টোবর দেখা গেলো আবার এসে তারা পুনরায় ভাঙলো। আমরা ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা বঙ্গকন্ধু সড়কের কয়েকটি ব্যাংক থেকে কোটি কোটি টাকা ঋণ নিয়ে ব্যবসা শুরু করেছিলাম। এখন দোকান ভেঙ্গে ফেলার ফলে আমরা পথে তো বসছিই সাথে এখন ঋণ কীভাবে পরিশোধ করবো সেটা নিয়েও চিন্তা করতে হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী আপনার কাছে আমাদের আকুল আবেদন আপনি আমাদের একটু দেখেন, আমাদের বাঁচান। আপনি যদি না দেখেন তাহলে আমাদের আর কোন উপায় নাই। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি মেহনতী মানুষের মা। আপনি যদি না দেখেন তাহলে আমরা এতগুলো ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা কোথায় গিয়ে দাড়াবো।

সব খবর
নগর বিভাগের সর্বশেষ