সোমবার ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯

আওয়ামী লীগের সদস্য ফরম পাননি কাউন্সিলর দুলাল

সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ২২:১৮

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: বন্দরে আওয়ামী লীগের সদস্য ফরম বিতরণ করা হলেও মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক ও নাসিক ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সাইফুদ্দিন আহমেদ দুলাল প্রধানকে ফরম দেয়া হয়নি। এ বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন কাউন্সিলর দুলাল প্রধান। তবে আওয়ামী লীগের একটি সূত্র জানায়, বিতর্কিত কাউকে আওয়ামী লীগের সদস্য ফরম দেয়ায় কেন্দ্রীয় নির্দেশনা রয়েছে। হয়তো সে কারণেই ফরম পাননি দুলাল প্রধান। কেননা কিছুদিন পূর্বে ফেন্সিডিলসহ ডিবির হাতে গ্রেফতার হয়েছিলেন তিনি। এদিকে দুলাল প্রধানের দাবি, নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ একেএম শামীম ওসমানের কর্মী বলেই ফরম পাননি তিনি।

তবে এ বিষয়ে নাসিক ২৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাইফুদ্দিন আহমেদ দুলাল বলেন, আমি দীর্ঘদিন যাবৎ আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক পদে আছি। আওয়ামী লীগের প্রার্থী হয়েই দুইবার কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছি। আওয়ামী লীগের সকল সভা-সমাবেশে আছি আমার সাধ্যমতো কাজ করেছি। কিন্তু আমি সদস্য ফরম পাইনি। এমনকি মাহবুবুর রহমান কমলসহ আরও অনেকেই পাননি। আওয়ামী লীগের রাজনীতির জন্য নিবেদিত থেকে যখন ফরম না পাই তখন খুব কষ্ট লাগে।

না পাওয়ার কারণ হিসেবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি তো জানি না কেন দেয় নাই। সদস্য ফরমের দায়িত্বে তো মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন। আর ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে এই ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি জামান ভাই। তারে জিজ্ঞেস করাতে তিনি বলেন, আমি ও কমল ব্লকের কাউকে ফরম দেয়ায় নিষেধ রয়েছে। হয়তো সভাপতি সাহেবের (আনোয়ার হোসেন) বিরাগভাজন হয়েছি কোন কারণে। নইলে কেন এমনটা হবে? সেক্রেটারি খোকন ভাইকে জিজ্ঞেস করেছিলাম। আসলে আনোয়ার সাহেব ও আরমান সাহেব বন্দরে তাদের নিজেদের একটা বলয় তৈরি করতে চায়। এমনও হইসে আগে বিএনপি যারা করছে তারাও ফরম পাইছে কিন্তু আমরা আওয়ামী লীগের রাজনীতি করি, শামীম ভাইয়ের সৈনিক কিন্তু ফরম পাই না।

মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন ওমরাহ হজ পালনের উদ্দেশ্যে সৌদি গমন করায় তার সাথে আলাপ করা সম্ভব হয়নি। অন্যদিকে সাধারণ সম্পাদক এড. খোকন সাহার মুঠোফোনের নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায়।

তবে এ বিষয়ে মহনাগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক জিএম আরমান বলেন, আসলে কাকে ফরম দেয়া হয়েছে আর কাকে দেয়া হয়নি সে বিষয়টা আমি বলতে পারছি না। এ বিষয়টা ভালো বলতে পারবেন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। তবে কেন্দ্রীয় নির্দেশনা অনুযায়ী, যারা সন্ত্রাসী কর্মকান্ড কিংবা কোন ধরণের বিতর্কে জড়িত তাদের সদস্য ফরম দেয়ার ব্যাপারে বিধিনিষেধ রয়েছে। তবে এই তালিকায় কারা রয়েছেন সে বিষয়ে আমার জানা নেই।

সব খবর
রাজনীতি বিভাগের সর্বশেষ