সোমবার ২০ আগস্ট, ২০১৮

আইভী-শামীম সংঘাত, তদন্ত শেষ হবে কবে?

বৃহস্পতিবার, ৯ আগস্ট ২০১৮, ২১:৩২

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: শহরে গত ১৬ জানুয়ারি শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কে (বিবি রোড) ঘটে যাওয়া সংঘর্ষের সাড়ে ৬ মাস পেরিয়ে গেলেও আলোর মুখ দেখেনি তদন্ত প্রতিবেদন। তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, আরো একমাস লাগবে। তবে একমাসের কথাটাও নিশ্চয়তার সাথে বলতে পারছেন না। এদিকে সম্প্রতি তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটির অন্যতম সদস্য অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান পুলিশ সুপার পদোন্নতি পেয়ে বদলী হয়ে গেছেন। এই অবস্থায় আদৌ তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হবে কিনা এ নিয়ে ইতিমধ্যে জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। অনেকে মনে করছেন অন্ধকারে ডুবে গেছে হকার ইস্যুর তদন্ত প্রতিবেদন, আলোর মুখ দেখার সম্ভবনা খুবই ক্ষীন।

গত ১৬ জানুয়ারি শহরের প্রধান সড়ক বঙ্গবন্ধু সড়ক (বিবি রোড) ফুটপাতে হকার বসানো নিয়ে মেয়র সেলিনা হায়াত আইভী ও সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সে সময় মেয়র আইভী, মেয়রের সমর্থক, সাংবাদিকসহ অর্ধ শতাধিক সাধারণ মানুষ আহত হয়। এ সময় সাংসদ শামীম ওসমানের এক সমর্থককে প্রকাশ্যে অস্ত্র প্রদর্শন করতেও দেখা যায়। এ বিষয়ে তদন্তের জন্য ঘটনার পরের দিন ১৭ জানুয়ারি ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে জেলা প্রশাসন। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) জসীম উদ্দীন হায়দারকে প্রধান করে এ কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির অপর দুই সদস্য হচ্ছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান ও র‌্যাব-১১ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বাবুল আক্তার। কমিটিকে ৭ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নির্দেশনাও দেয়া হয়। কিন্তু তদন্ত কমিটি প্রতিবেদন দেয়ার জন্য ৬ বার সময় নিয়েছে জেলা প্রশাসনের কাছ থেকে। দফায় দফায় সময় নেবার পর শেষ ২৩ মে তদন্ত কমিটির প্রধান জসীম উদ্দিন হায়দার ২৪ মে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছিলেন। কিন্তু এরপর মে-জুন পেরিয়ে এখন আগস্ট মাস, প্রতিবেদন দাখিল হয়নি এখনো। তবে এ বিষয়ে জসীম উদ্দিন হায়দার বলছেন, আরো সময় লাগবে। অনেক কিছু নতুন করে বেরিয়ে আসছে। নতুন করে আবার খতিয়ে দেখতে হচ্ছে।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) জসীম উদ্দিন হায়দার প্রেস নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘এখনো শেষ করতে পারি নাই। কমিটিতে তো আর আমি একা না। কমিটিতে আরো দুইজন আছে। সবাই সম্মিলিতভাবে কাজ করে যাচ্ছি, আশা করি খুব দ্রুত জমা দিতে পারবো।’

তদন্ত কমিটি গঠন করার পর প্রায় সাড়ে ৬ মাস পেরিয়ে গেছে। এতো দেরীর কারণ জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, ‘আসলে তদন্ত কমিটি ওই দিনের ঘটনায় গণমাধ্যমে আসা নিউজ, ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করে পর্যালোচনা, প্রত্যক্ষদর্শী, হকার, নাগরিক সমাজ, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন মানুষের সঙ্গে কথা বলে তদন্ত প্রতিবেদন তৈরি করেছেন। এখন একটা তদন্ত করতে গিয়ে দেখা যাচ্ছে একটা ব্যাপার সমাধান হলে আবার আরেকটা ইস্যু বের হচ্ছে। তাই এতোটা দেরী হচ্ছে।’

কবে নাগাদ তদন্ত প্রতিবেদন সম্পন্ন্ করে জমা দিতে পারবেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আগামী মাসের মধ্যে দেয়ার চেষ্টা করবো। তবে শিওর হয়ে কিছু বলা যাচ্ছে না।’

এদিকে ঘটনার সাড়ে ৬ মাস পেরিয়ে গেলেও কেন তদন্ত প্রতিবেদন সম্পন্ন হচ্ছে না সে বিষয়ে নানা প্রশ্ন দানা বাধছে মানুষের মনে। অনেকে মনে করছেন, এখানে রাজনৈতিক নেতাদের সম্পৃক্ততা আছে বলেই কেবল এতো দেরী হচ্ছে। এই তদন্ত প্রতিবেদন আলোর মুখ দেখবে কিনা তা নিয়েও সন্দেহ রয়েছে অনেকের।

সব খবর
রাজনীতি বিভাগের সর্বশেষ