সোমবার ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯

আইভীর বক্তব্যের পর হার্ডলাইনে পুলিশ

মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯, ২১:১২

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: নগরীর ব্যস্ততম ও প্রধান সড়ক বঙ্গবন্ধু সড়কের দুই পাশের ফুটপাতে হকার ও যানজট নিরসনে অবৈধ পার্কিংয়ের বিরুদ্ধে উচ্ছেদ অভিযান চালিয়েছে জেলা পুলিশ।

মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (‘ক’ অঞ্চল) মেহেদী ইমরান সিদ্দিকীর নেতৃত্বে এই অভিযান পরিচালিত হয়।

এর আগে সোমবার এক সভায় নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী শহরের হকার, অবৈধ স্ট্যান্ড ও পার্কিংয়ের বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ‘ফুটপাত নিয়ে এক বছর আগে আমার উপর আক্রমন করা হয়েছে। আমার অনেক লোক আহত হয়েছে। তারপরও ফুটপাতে হকার বসেছে। এ নিয়ে এসপি হারুন সাহেবকে আমরা চিঠি লিখেছিলাম। তিনি নিজ উদ্যোগে এগুলো পরিস্কার রাখার চেষ্টা করেছেন। এখন তিনি চলে যাওয়ায় নারায়ণগঞ্জ যেন আবার স্বর্গরাজ্য হয়ে গেছে। যার যার মতো সে সে পূর্বের জায়গায় ফেরত এসেছে। সকল অবৈধ যানবাহন স্ট্যান্ড পূর্বের জায়গায় ফেরত এসেছে। এটা একটা সহজ প্রক্রিয়া একজন এসপি আসবে চলে যাবে, ডিসি আসবে চলে যাবে ও মেয়র আসবে চলে যাবে কিন্তু প্রতিষ্ঠানের কাজ তো থেমে থাকার কথা না।’

এ সময় উপস্থিত অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিবি) সুবাস সাহাকে উদ্দেশ্য করে মেয়র বলেন, ‘এএসপির দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলছি এগুলোর বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নিন। মানুষকে নিঃশ্বাস ফেলার সুযোগ দিন।’

মেয়রের এক বক্তব্যের পরদিনই হার্ডলাইনে যেতে দেখা গেছে পুলিশকে। মঙ্গলবার বিকেলে ফুটপাতের উপর থেকে হকারদের উচ্ছেদ করা হয়। সড়কের উপর থেকে অবৈধ পার্কিংয়ে থাকা গাড়িগুলোকে সরিয়ে নিতে নির্দেশ দেয় পুলিশ। তবে এ সময় অবৈধ পার্কিংয়ে থাকা গাড়িগুলোকে কোন জরিমানা করা হয়নি।

উচ্ছেদ অভিযানে আরও উপস্থিত ছিলেন সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আসাদুজ্জামান, পরিদর্শক (তদন্ত) জয়নাল আবেদীন, পরিদর্শক (অপারেশন) আবদুল হাইসহ সদর থানার পুলিশ সদস্যরা।

এ বিষয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মেহেদী ইমরান সিদ্দিকী বলেন, পথচারীরা যাতে নির্বিঘ্নে চলতে পারে তাই উচ্ছেদ অভিযান চালিয়েছি। অবৈধ পার্কিংয়ের কারণে রাস্তায় যানজট লেগে জনদুর্ভোগের সৃষ্টি হয় তাই অবৈধ পার্কিং করে যারা রেখেছিল তাদেরকে যাত্রী নামিয়ে দিয়েই চলে যেতে বলা হয়েছে। শহরে কোনভাবেই হকার বসতে দেওয়া যাবে না ও অবৈধ পার্কিং চলবে না।

এদিকে রাতেও পুলিশের তৎপরতা দেখা যায়। পুলিশের চোখ এড়িয়ে হকাররা সড়কের ফুটপাতে বসতে চাইলেও পুলিশের লাগাতার টহলে বসতে পারেনি। সড়কে পুলিশ সদস্য দেখলেই জিনিসপত্র নিয়ে সড়কের গলিগুলোতে সরে পড়ে হকাররা। অন্যদিকে পুলিশ সরে গেলে আবার সড়কে বসে পড়ে হকাররা।

সব খবর
নগর বিভাগের সর্বশেষ